1. multicare.net@gmail.com : banglartv.net :
মঙ্গলবার, ০৩ অগাস্ট ২০২১, ১২:২৫ অপরাহ্ন

বহু অপকর্মের হোতা লন্ডন প্রবাসী লম্পট পারভেজ

রিপোর্টারের নাম:
  • আপডেট: শুক্রবার, ২৫ জুন, ২০২১
  • ৩৪ বার পড়া হয়েছে

লন্ডন থেকে বিশেষ প্রতিনিধি ফজলুল হকঃ
বহু নারীতে আসক্তি একজন লম্পট পারভেজ আহমেদ। চতুর শৃগাল এই লম্পট চরিত্রহীন পারভেজ নিজেকে সবসময় সিংগেল বলেই মেয়েদের সাথে মিশতে থাকেন। বাংলাদেশে জন্ম নেয়া এই চরিত্রেহীন এই পারভেজ এর নামের পাশে রয়েছে বহু কলংক। বহু মানুষের সাথে প্রতারণা করেছে সে ফলে এখন চাইলেও দেশে ফিরতে পারছে না। ঢাকা বিমানবন্দর পাড়ি দিলে মানুষ তাকে ছিড়ে ছিড়ে খাবে এবং পুলিশের খাচায় বন্দি হবে বলেও বিশ্বস্ত মাধ্যমে জানা গেছে।

লন্ডন প্রবাসী এই লম্পট দুশ্চরিত্র নিজেকে কোটিপতি বয়ান দিয়ে মেয়েদেরকে ফাদে ফেলেন। বয়স্ক হলেও নিজেকে সবসময় তরুন ভাবেন এবং টাকা পয়সার লোভ দেখিয়ে বহু মেয়ের সঙ্গে অবৈধ প্রেমের সম্পর্ক তৈরী করেন। পরবর্তীতে বিভিন্ন অজুহাত দেখাইয়া সেসব মেয়েদের কাছ থেকে টাকা পয়সা লোপাট করেন।
বাংলাদেশের অনেক মেয়ের সঙ্গে এরকম সম্পর্ক তৈরী করে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে জানা গেছে। কাজের মেয়ে, রিক্সাচালক, নরসুন্দর, ড্রাইভার যখন যার সাথে পরিচয় হয়েছে তার সাথেই সম্পর্ক তৈরী করে লন্ডন নিয়ে আসার প্রলোভন দেখিয়ে হাতিয়ে নিয়েছে কয়েক কোটি টাকা। লন্ডনে বিশাল ব্যবসায়ী তিনি, নিজের বাড়ি আছে এরকম কথা বলে বিয়ে করেছেন কয়েকটি। বিয়ের নাম করে লিভ টুগেদারও করেছেন৷ কিন্তু খোজ নিয়ে জানা গেছে, লন্ডনে তার নিজস্ব কোন বাড়ি নেই,ফ্লাট নেই এমনকি নিজে চাকরি বাকরিও করেন না। সরকারের কাছ থেকে নেয়া একটি ছোট্ট রুমে বসবাস করে। কোন চাকরি নেই,ব্যবসা নেই। ঢাকার কোন আত্নীয়স্বজনদের সাথেও নেই তেমন কোন যোগাযোগ। এখন চাইলে ঢাকাতেও যেতে পারতেছে না কারন যাদেরকে চাকরি দেয়ার করে টাকাপয়সা হাতিয়ে নিয়েছে তারা জানলে নিশ্চিত কেরানীগঞ্জ কারাগারে গিয়ে বসে থাকতে হবে। তাই দেশের মাটিতে পা দিতেও পারছে না।
এদিকে আমাদের ঢাকা প্রতিনিধির মাধ্যমে জানা যায়,
একটা মাধ্যমে পরিচয়ের পর ঢাকার এক তালাকপ্রাপ্ত দুই সন্তানের জননীকে স্বপ্ন দেখাতে থাকে। ওই নারীর দুই সন্তান ছিল আইরিশ নাগরিক, ওই নারীর স্বামীর সাথে ডিভোর্স হয়ে গিয়েছিল। মাথার উপর ছাদ বলতে কিছু ছিল না, দুই সন্তানকে নিয়ে সেসময় নানারকম ঝুট ঝামেলা পোহাতে হচ্ছিল। ভালো থাকার অধিকার আমাদের সবারই আছে। সুন্দরী কোন নারী ডিভোর্স হলেও নানারকম ঝক্কিঝামেলা পার করতে হয়। প্রাসাদ ছেড়ে দুই ছেলেকে নিয়ে কোন রকম দিনাতিপাত করতেছিল। লম্পট পারভেজের সাথে যোগাযোগের এক পযার্য়ে সে এমন ভরসা দিতে থাকে আর বিয়ের পর লন্ডনে দ্রুত সময়ের মধ্যে বাচ্চাসহ নিয়ে যাবে। কারন সেসময় বাচ্চাছাড়া উনি আর কিছুই বুঝতেন না। বাচ্চাদেরকে বাবার পরিচয়ে অনেক আদর আর ভালো বাসা দিয়ে বড় করে তুলবে, মানুষের মত মানুষ করে দিবে।
নারীটি মনে করলেন তার বুঝি কষ্ট দূর হলো, সত্যি কারের ভালো বাসার একটা মানুষ জীবনে আসলো কিন্তু বিয়ের কিছুদিন পর বুঝতে পারলেন একজন চরিত্রহীন, মিথ্যাবাদী আর প্রতারককে বিয়ে করেছেন।
বিয়েতে কাবিনের টাকা নেই, তার নাকি পকেটমার হয়ে গেছে, ভুলভাল বুঝিয়ে বিয়ের খরচটাও ওই বোকা নারীর টাকা দিয়েই করেছিলেন। বিয়ের পর আরামে বন্ধুর বাসায় উঠেছিল, একটা বাসা নেয়ার মত ক্ষমতা ছিল না। যাহোক যে কয়দিন ঢাকায় ছিল, ওই নারীর জমানো টাকাগুলো নষ্ট করে দিয়ে গিয়েছিল। যাওয়ার সময় টিকিট এর টাকাটাও উসুল করে নিয়ে গিয়েছিল।
ভন্ড এই প্রতারক কিছুদিন থাকার পর বিলেতে ফিরে যান এবং সেসময় তার বিয়ে করা বউকে একটা ছোট বাসা ভাড়া নিতে বলেন। প্রতিমাসে কিছু পাউন্ড পাঠাতেন যা দিয়ে নুন আনতে পান্তা ফুরানোর মত অবস্থা। বাসা ভাড়া দিলে খাওয়া হতনা, খাওয়া হলে বাসা ভাড়া দেয়া হতনা এরকম অবস্থা। তারপরেও হাল ছেড়ে দিবে না, মানুষের খারাপ সময় থাকতেই পারে, লম্পট পারভেজ নিজেকে বড় ব্যবসায়ী বলত এবং ব্যবসা করতে গিয়ে সব লস করেছেন ফলে এই মুহুর্তে বেশী টাকা পাঠাতে পারছে না। বোকা নারীটি বিশ্বাস করে কোন রকমে দিনাতিপাত করতেছিল। কিন্তু এভাবে কতদিন? পরে খোজখবর নিতে লাগলো, পারভেজের ভাই ভাবির সাথে যোগাযোগ হলো তখনই জানতে পারলো আসল ঘটনা। পারভেজ কোন ব্যবসা করত না, লন্ডনে সরকারি একটা ছোট্ট নীড়ে বসবাস করে, কোন ব্যবসা করত না, সরকারি অনুদান নিয়ে যা হয়, তা দিয়েই চলত।
ওই নারীকে বিয়ে করার আর একটা কারন ছিল যা পরে বুঝতে পারেন। তার দুই ছেলে আইরিশ নাগরিক ছিল বিধায় তাদেরকে নিয়ে আয়ারল্যান্ডে স্যাটেল হতে চেয়েছিল।

ভুক্তভোগী ওই নারী সবকিছু সহ্য করে চলতেছিল আর ছেলে দুইটাকে কিভাবে মানুষ করবে তা নিয়ে চিন্তা করতেছিল। কিন্তু একের পর এক বিভিন্ন মেয়েলী সমস্যা চোখের সামনে আসতে থাকে, লন্ডনে বসে এরকম আরও কয়েকজন মেয়েকে ভালো বাসার বন্ধনে আবদ্ধ করতে কিংবা তাদের সাথে নিয়মিত লুতুপুতু খেলায় ব্যস্ত থাকত লম্পট এই লোকটি। একেরপর এক স্ক্যান্ডালে জড়াত, বউয়ের কাছে কতবার ধরা খেয়েছে, কতবার পবিত্র কোরআন শরীফে হাত দিয়ে শপথ করেছে যে আর এমন ভুল কাজ করবে না কিন্তু কথায় বলে কয়লা ধুলে ময়লা যায় না। পারভেজ ছিল এরকম। যাদেরকে বিদেশে নিয়ে যাবার নাম করে টাকা পয়সা হাতিয়েছে তারা নিয়মিত তার বউকে কল দেয়া শুরু করে, প্রেসার দিতে থাকে কিন্তু তাকে এসব বললে কোন প্রকার ভ্রুক্ষেপ করত না।
এভাবে কত চলা যায়? গত বছরের অক্টোবর থেকে টোটালি টাকা পাঠানো বন্ধ করে দিল,কিভাবে ঢাকা শহরে বসবাস করছে, কি খাচ্ছে, সকল প্রকার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিল।
শুনা যাচ্ছিল এবং যথেষ্ট প্রমাণ আমাদের হাতে আছে এক মেয়েকে বিয়ে করে তার সাথেই সংসার করতে চাচ্ছিল।
আমাদের প্রতিবেদক সরেজমিনে তার লন্ডনের সরকারি বাসায় এবং তার হাতে প্রতারিত হওয়া অসংখ্য মানুষের সাথে কথা বলে এব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছেন। অসংখ্য প্রমানসাপেক্ষে আমাদের হাতে ইতিমধ্যে পৌছেছে। যাহোক বিবাহিত বউ রেখে উঠতি বয়সী মেয়েদের সাথে ফষ্টিনষ্টি করায় তার মুল পেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর ভিতরে বিবাহিত বউকে নিয়েও যেতে পারবে না, বাচ্চাদের ভরনপোষণ দিবে না আবার খরচ চালাবে না, আবার দেখে নেয়ার হুমকি দিবে।
ওই নারীর দুই ভাই ব্যাপারটি নিয়ে কি করা যায় কিংবা পারভেজ কি করতে চাই এরকম পরামর্শের জন্য পারভেজের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাদেরকে গুন্ডা আখ্যায়িত করে দেখে নেয়ার হুমকি প্রদান করে। তিনি নাকি অনেক ক্ষমতাশীল, ঢাকায় বড় বড় সন্ত্রাসীরা তার পকেটে থাকে। ক্ষমতাশীল অনেক প্রভাবশালীর সাথে তার সখ্যতা আছে এমনকি তিনি নিজেকে প্রয়াত এক স্পিকারের আপন ভাতিজা মনে করেন। কিন্তু খোজ নিয়ে জানা গেছে তার এমন কোন চাচা নেই। শুধু ফাফড় দিয়েই মানুষের কাছ থেকে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেন। এদিকে ঢাকা প্রতিনিধির সাথে যোগাযোগ করে জানতে পেরেছি প্রতারণার অভিযোগে তার নামে ঢাকার একটি থানায় সাধারণ ডায়েরি হয়েছে এবং উকিল নোটিশ জারি হয়েছে। ঢাকায় কখনো পা রাখলেই সে গ্রেফতার হবে এরকম তথ্যও পাওয়া গিয়েছে।
এদিকে আমরা লন্ডনেও খুব কাছ থেকে দেখেছি যে, অনেক সামাজিক কোন প্রোগ্রামে গিয়ে মেয়েদের সাথে লেপ্টে থাকে এবং মেয়েদের শরীরে হাত দিয়ে ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। তার এহেন কর্মকার্ন্ডে বিলেতীরাও লজ্জিত এবং তার উপযুক্ত শাস্তি এখানকার শান্তিপ্রিয় বসবাসকারীরাও চান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

www.bmftelevision.com© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

Developer By Zorex Zira

Design & Developed BY: Al Popular It Software